দেশ রাজনীতি

ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহের সঙ্গে টুইট যুদ্ধ অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এবং গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানির

Bangla 24×7 Desk : ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ । আর তাই নিয়েই রীতিমতো টুইট যুদ্ধ শুরু হয়ে গেল অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন এবং গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানির সঙ্গে। ব্রিটিশ লেখক ও বামপন্থী নেতা ফিলিপ স্পাটের ১৯৩৯ সালের একটি উক্তি তুলে ধরে দেশের অর্থনীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ ।

ফিলিপ স্পাটের উক্তি ছিল , ” গুজরাট আর্থিক ভাবে উন্নত হলে, বৌদ্ধিক ভাবে পিছিয়ে পড়া প্রদেশ। বিপরীতে বাংলা আর্থিক ভাবে পিছিয়ে থাকলেও, সাংস্কৃতিক ভাবে এগিয়ে ”। এই টুইটের পরেই রামচন্দ্র গুহের সঙ্গে টুইট যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানি। বিখ্যাত ঐ ঐতিহাসিকের সঙ্গে টুইট যুদ্ধে জড়ান কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন।

ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ মনে করছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর রাজ্য গুজরাত অর্থনৈতিক দিক থেকে শক্তিশালী হলেও সাংস্কৃতিক দিক থেকে অনেক পিছিয়ে আছে । কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন রামচন্দ্র গুহকে দেশের অর্থনীতি নিয়ে চিন্তা করতে বারণ করেন ।

থেমে থাকেননি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রূপানিও। পাল্টা টুইটে তিনি লেখেন, ‘‘অতীতে ব্রিটিশেরা বিভাজনের রাজনীতি করে শাসন করত। আর বর্তমানে সেই দায়িত্ব নিয়েছে সমাজের এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবী মানুষজন। কিন্তু ভারতীয়রা কিছুতেই ওই চালে পা দেবেন না। গুজরাট মহান। বাংলাও মহান। ভারত ঐক্যবদ্ধই রয়েছে।”

গুজরাটের সংস্কৃতি নিয়ে প্রশ্ন তোলায় কোমর বেঁধে আক্রমণে নামেন অর্থমন্ত্রী। নির্মলা সীতারামন টুইটে বাগযুদ্ধ শুরু করেন রামচন্দ্র গুহের সঙ্গে। না, সীতারামনের এই টুইট মুখ বুজে হজম করেননি রামচন্দ্র গুহ।

তিনি ফের টুইট করেন , ‘‘ এখন দেখছি খোদ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী ইতিহাসবিদের টুইট নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছেন। দেশের অর্থনীতি সত্যিই সুরক্ষিত হাতে ! ” পাশাপাশি টুইট করে অর্থমন্ত্রীকে সতর্কও করেন রামচন্দ্র গুহ।

Follow Me:

Related Posts