অফবিট মহানগর রাজ্য

এবার চা কাকুর পাশে দাঁড়ালেন সাংসদ মিমি

Bangla 24×7 Desk : জনতা কারফিউ এর শুরু দিন থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সকলের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়েছে ‘চা কাকুর কথা ’ আমরা কি চা খাবনা ‘চা খাব না আমরা?’এই মিম টির ঝড় বয়ে যাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায় । চা কাকুর কথা , কে এই ‘চা কাকু’, না জেনেই অধিকাংশ মানুষ তাঁকে ব্যাঙ্গ করছেন ।’ চা কাকু’ ওরফে যাদবপুর অঞ্চলের শ্রীকলোনীর বাসিন্দা মৃদুল দেবের। এত মিম এর ভিড়ে তিনি নিজেকে দেখতে দেখতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছেন ,এই মিম গুলি তাঁর কাছে অভিশাপের বর হয়ে রয়েছে । আর্থিক অভাব-অনটনের সঙ্গে চলা এই দুর্দশাগ্রস্থ মানুষটির পাশে দাঁড়ানোর জন্য অনেকে হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন তাঁর দিকে । সোশ্যাল মিডিয়ায় এত মিমের ভিড় চা কাকু কে এনে দাড় করিয়েছেন এক নতুন প্ল্যাটফর্মে। সাংসদের মিমি চক্রবর্তী এইবার এই দুঃস্থ মানুষটির দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন ।

মিমি শুক্রবার তাঁর এক প্রতিনিধিকে ‘মৃদুলবাবু’ চা কাকুর বাড়িতে পাঠিয়েছিলেন। আর তাঁর কারনেই মৃদুলবাবুর সাথে ভিডিও কলে কথা বললেন মিমি চক্রবর্তী ।কলের শুরুতেই জিজ্ঞেস করলেন তাঁর শরীর-স্বাস্থ্য নিয়ে।মিমি তাঁর প্রতিনিধির হাত দিয়ে মৃদুলবাবুর পরিবারের জন্য তিনি চাল-ডাল সহ কিছু অত্যাবশকীয় জিনিস-সহ চা পাতাও পাঠিয়ে দিয়েছেন । আর মৃদুলবাবুর যদি আবার কোন জিনিস প্রয়োজন হয় তবে সেতা যেন অবশ্যয় তাঁকে জানানো হয়,তাই মিমি তাঁর প্রতিনিধির ফোনের নাম্বার দিয়েছেন মৃদুল বাবুকে তিনি যেন তাঁর দরকার পরলে অবশ্যই যেন ফোন করে তাঁর অসুবিধার কথার জানান, এইকথা গুলই মিমি চক্রবর্তী বললেন মৃদুল দেবকে ।

কিছুদিন আগে স্বয়ং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় মৃদুল বাবুর পরিবারের অবস্থা দেখে তাঁর দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। এইবার মহারাজের মতো যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তীও একই পথ হাঁটলেন তাঁর পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন। মিমি করোনা মোকাবিলা করার জন্য এই সংকটকালীন পরিস্থিতিতে নিজের এলাকার মানুষদের কথা মাথায় রেখে তাঁদের সুবিধে-অসুবিধের কথা ভেবে একটি টিম গঠন করেন। যাঁরা মিমির নির্দেশ মেনে সবার বাড়িতে গিয়ে তাদেরকে সাহায্য করবেন ওষুধ থেকে শুরু করে তাঁদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী পৌঁছে দেওয়ার বাবস্থায় করেন, এমনকি রাস্তায় কুকুরদেরকে খাওয়ানো হচ্ছে ।    

Follow Me:

Related Posts