অফবিট দেশ রাজ্য

রুপোলী দুনিয়া এখন অতীত , রানাঘাটের রানু মণ্ডলের দিন কাটে অর্ধাহারে

Bangla 24×7 Desk : রানাঘাটের রানু মণ্ডল ! সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে এই নামটি কারোরই অজানা থাকার কথা নয় । যার গানে মুগ্ধ হয়ে তাঁকে দিয়ে গান রেকর্ড করিয়েছিলেন ভারতের বিশিষ্ট সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব হিমেশ রেশমিয়া । মাত্র কয়েক মাস আগে পর্যন্ত বাণিজ্য নগরীর বিলাস বহুল দুনিয়াতে থাকা রানাঘাটের রানু মণ্ডলের এই লক ডাউনের মধ্যে দিন কাটছে অর্ধাহারে ! ঠিক কিভাবে শুরু হয়েছিল রানাঘাটের রানু মণ্ডলের সেই যাত্রা পথ ? আসুন জেনে নিন ।

কয়েক মাস আগে পর্যন্ত এই রাজ্যের নদীয়া জেলার অন্তর্গত রানাঘাট শহরের রেল স্টেশন থেকে উত্থান রানু মণ্ডলের । রানু মণ্ডলের নিজের খেয়ালে গাওয়া গান ‘এক প্যায়ার কা নাগমা হ্যায় ’ নিজের মোবাইলে রেকর্ড করেন এক নিত্যযাত্রী অতীন্দ্র চক্রবর্তী । ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিওতে দেখা যায় যে রানু মণ্ডলের কণ্ঠের সাথে আশ্চর্য মিল রয়েছে ভারতের সঙ্গীত জগতের সুর সম্রাজ্ঞী লতা মঙ্গেশকরের । যার ফলস্বরূপ ‘লতাকণ্ঠী’ উপাধি পেতে খুব বেশী দেরি হয়নি রানু মণ্ডলের । নেটিজেনদের দৌলতেই রানু মণ্ডল পৌঁছে যান মডার্ন গ্ল্যামার ওয়ার্ল্ডের স্বপ্ননগরী মুম্বইতে । রানাঘাটের ভবঘুরে রানুর সাথে কণ্ঠদান করেন হিমেশ রেশমিয়া , উদিত নারায়ণের মতো শিল্পীরা । হিমেশের সঙ্গে রেকর্ড করেন ‘তেরি মেরি কাহানি’ নামের একটি গান । যার ফলে রুপোলী দুনিয়ায় শুরু হয় তাঁর বর্ণময় জীবন ।

কিন্তু কথায় আছে , সময় চিরকাল এক থাকে না । লকডাউন চলাকালীন তাঁর নুন আনতে পান্তে ফুরোয় দশা। দু’বেলা দু’মুঠো ঠিকমত খাবার জুটছে না। এক প্রকার অর্ধাহারে দিন কাটছে তাঁর। মাঝে মাঝে জুটছে অন্ন। মাঝে মধ্যে মুড়ি খেয়ে দিন কাটছে। এই বিষয়ে রানু মণ্ডল বলেন , ” এলাকার লোকের দয়া দাক্ষিণ্যে খাবার আসে । না হলে ভুখা পেটে দিন গুজরান হয় তাঁর । ” আবার দুঃখ প্রকাশ করে বলেন , ” কেউ তাঁর খোঁজ নেয় না । নিজের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে খুব কষ্টে আছেন তিনি । তাঁর আগের দিনগুলো যেন ফিরে এসেছে। ”

Follow Me:

Related Posts