রাজ্য

বিশ্বভারতী কাণ্ডে তদন্তে নামল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট

Bangla 24×7 Desk : পরিবেশ আদালতের নির্দেশ অনুসারে পৌষ মেলার মাঠে পাঁচিল দিয়েছে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এই কাজ অনেকের না পসন্দ । রীতিমতো রণক্ষেত্র বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর। এই ঘটনার পিছনে রাজনৈতিক ইন্ধন দেওয়ার মত অভিযোগ উঠেছে । ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর ও শিক্ষামন্ত্রককে চিঠি দিচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পদ্মশ্রী প্রাপক সুশোভন বন্দ্যোপাধ্যায় পাঁচিল দেওয়া প্রসঙ্গে বিশ্বভারতীকে সর্মথন করেছিলেন। যা নিয়ে বোলপুরের সাধারণ মানুষ এবং ব্যবসায়ীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছিল। বুধবার সকালে পদ্মশ্রী প্রাপক সুশোভন বন্দ্যোপাধ্যায়ের আবক্ষ মূর্তিতে কেউ কালি লেপে দেয় । যার কারণে আবার উত্তেজনার সৃষ্টি হয়েছে ।

পৌষমেলা প্রাঙ্গনে পাঁচিল দেওয়াকে কেন্দ্র করে গোলমালের ঘটনার তদন্ত করছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট । ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে , গত সোমবার কয়েক হাজার মানুষ পৌষমেলা প্রাঙ্গনে জড়ো হয়ে গোলমাল শুরু করে। একাধিক বিষয় সম্পর্কে জানতে তদন্ত শুরু করেছেন ইডি আধিকারিকরা । লোক জোগাড় ও ভাঙার জন্য টাকা খরচ করা হয়েছিল , কোন ব্যক্তি বা সংগঠন তাদের টাকা দিয়ে সাহায্য করে ছিল কি না এই সব বিষয় খতিয়ে দেখছেন ইডি আধিকারিকরা । এই ঘটনায় সমস্ত নথি পত্র পাওয়ার জন্য রাজ্য পুলিশের ডিজি ও বীরভূমের পুলিশ সুপারকে চিঠি দিচ্ছেন ইডি আধিকারিকরা ।

জট কাটাতে বুধবার দপ্তরেই সবপক্ষের সঙ্গে বৈঠকে বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল জেলা প্রশাসন। কিন্তু প্রশাসনের আহ্বানে সাড়া দিল না বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। জানা গিয়েছে , বুধবার রাজ্য সরকার তথা জেলা প্রশাসনের তরফে ডাকা প্রশাসনিক বৈঠকে উপস্থিত হয়নি বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। এমনকী তাঁদের তরফে কোনও প্রতিনিধিও পাঠানো হয়নি। বিশ্বভারতীর দাবি , তারা চেয়েছিলেন বৈঠক এলাকায় হোক। তা না হওয়ার কারণেই উপস্থিত হতে পারেননি তাঁরা। এই পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসন বৈঠকের মাধ্যমে মীমাংসা করার চেষ্টা করলেও কাজে এল না। বিশ্বভারতী প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে সকলের কাছে বাংলার সংস্কৃতি বজায় রাখার আরজি জানালেন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় ।  

Follow Me:

Related Posts