মহানগর রাজনীতি রাজ্য

বঙ্গ রাজনীতিতে ইন্দ্রপতন , প্রয়াত কংগ্রেস নেতা সোমেন মিত্র

Bangla 24×7 Desk : করোনা আবহের মধ্যেই বঙ্গ রাজনীতিতে ইন্দ্রপতন l প্রয়াত কংগ্রেস নেতা সোমেন মিত্র l দীর্ঘ রোগভোগের পরে প্রয়াত হলেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি l মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর l তাঁর স্ত্রী ও এক পুত্র বর্তমান l

সোমেন মিত্রর জন্ম ১৯৪১ সালের ৩১ ডিসেম্বর। অধুনা বাংলাদেশের যশোহর জেলায়। বহু দিন ধরেই হৃদযন্ত্রের সমস্যায় ভুগছিলেন সোমেন মিত্র। সাধারণত দিল্লির এইমসে তিনি চিকিৎসা করাতেন। শ্বাসকষ্ট জনিত ও কিডনির সমস্যা নিয়ে গত ২১ শে জুলাই থেকে বেলভিউ হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা সোমেন মিত্র । প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতির অসুস্থতার খবরে উদ্বিগ্ন ছিল রাজনৈতিক মহল।

হৃদস্পন্দনের মাত্রাও কমে গিয়েছিল। তাঁর শরীরে অক্সিজেনের মাত্রাও ছিল যথেষ্ট কম। তাঁর কোভিড পরীক্ষা করা হয়। তবে প্রাথমিক রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। হাসপাতলে নেফ্রোলজিস্ট প্রতীম সেনগুপ্ত এবং কার্ডিওলজিস্ট এস কে বিশ্বাস এবং অরিন্দম মৈত্রের মেডিকেল টিমের তত্বাবধানে ছিলেন তিনি l

রক্তে ক্রিয়েটিনিনের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় তাঁতে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। শনিবার তাঁর অবস্থার অবনতি হয়। কিডনি বিকল হয়ে যায়। ডায়ালিসিস করে প্রায় দেড় লিটার জল বার করা হয় বলে জানা গিয়েছে l মঙ্গলবার অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও চিকিৎসকদের সব চেস্টা ব্যর্থ করে বুধবার রাত দেড়টা নাগাদ তিনি মারা যান বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে ।

১৯৭২ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত শিয়ালদহ বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন। কংগ্রেসের অতি দুর্দিনেও তিনি দল ছাড়েননি। তবে ২০০৮ সালে কংগ্রেস ছেড়ে দিয়ে তিনি নিজস্ব রাজনৈতিক দল প্রতিস্ঠা করেন। নামকরণ করেন প্রগতিশীল ইন্দিরা কংগ্রেস। ২০০৯ সালে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন।

রাজনীতির ময়দানে ‘ছোড়দা’ হিসাবে পরিচিত এই মানুষটি ২০০৯ সালে ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ নির্বাচিত হন l ২০১৪ সালে তিনি সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে ফিরে যান তাঁর পুরনো দল জাতীয় কংগ্রেসে। ২০১৮ সালে দ্বিতীয় বারের জন্য তিনি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি হন। আমৃত্যু সেই পদে আসীন ছিলেন। তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমেছে কংগ্রেসে।

Follow Me:

Related Posts