রাজ্য স্বাস্থ্য

করোনা পরিস্থিতিতে কাজে গাফিলতি ! ২৬ জন চিকিৎসককে বরখাস্ত বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের

Bangla 24×7 Desk : করোনা পরিস্থিতিতে রাজ্যের অবস্থা সঙ্কটজনক । প্রায় প্রতিদিন বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা । এর সাথে আবার ভিন রাজ্য থেকে এই রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিক প্রবেশ করার ফলে সংক্রমণের আশঙ্কা আরও বেড়ে গেছে । করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় রাজ্য সরকার বিভিন্ন হাসপাতাল গুলিকে কোভিড হাসপাতাল করার পাশাপাশি একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে । করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় কোন রকম গাফিলতি মানতে নারাজ রাজ্য । করোনা রোগীদের চিকিৎসা সম্পর্কে রাজ্য সরকার যে যথেষ্ট ওয়াকিবহাল তার প্রমান আবার একবার পাওয়া গেল । করোনা পরিস্থিতিতে কাজে গাফিলতি ও বিনা নোটিশে দিনের পর দিন কাজে যোগ না দেওয়ার অভিযোগে ২৬ জন হাউস স্টাফকে বরখাস্ত করল বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ।

জানা গেছে , করোনা পরিস্থিতিতে বিগত প্রায় দু’মাস ধরে ঠিক মত কাজে যোগ দিচ্ছিলেন না এই হাউস স্টাফরা । বারবার সতর্ক করা হলেও কোন ফল হয়নি । তার উপর চলতি মাসের প্রথম তিন দিন কাজে যোগ না দেওয়ার জন্য তাঁদের বিরুদ্ধে এবার কড়া পদক্ষেপ নিল মেডিক্যাল কলেজ । বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ পার্থপ্রতিম প্রধান জানান , ” বুধবার দুপুরেই তাঁদের হাতে বরখাস্তের চিঠি হাতে ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে ” । মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে ঐ সকল প্রতিবাদী হাউস স্টাফদের প্রতিনিধিদের তরফে পাল্টা প্রতিবাদের নামার ইঙ্গিত মিলেছে ।

মোট ৪৬ জন হাউস স্টাফদের মধ্যে ২৬ জন হাউস স্টাফকে বরখাস্ত করা হলেও বাকি ২০ জন হাউস স্টাফ যদি কাজে যোগ না দিয়ে কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে সামিল হন তাহলে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে । এক্ষেত্রে লাগু করা হবে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন । রাজ্য স্বাস্থ্য দপ্তর ও ইণ্ডিয়ান মেডিক্যাল কাউন্সিলকে জানানো হবে ব্যপারটা । এর পাশাপাশি কোচবিহারের সিএমওএইচ সুমিত গঙ্গোপাধ্যায়কে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে । তার প্রতিবাদেও স্বাস্থ্যকর্মীরা বিক্ষোভ দেখান।

প্রতিবাদী হাউস স্টাফদের অভিযোগ , ” নির্দিষ্ট ডিপার্টমেন্ট অনুসারে কাজ না দেওয়া ও করোনা আক্রান্তদের ওয়ার্ডে লাগাতার কাজ করাচ্ছেন মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ ” । কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে হাতে ইস্তফা পত্র নিয়ে মেডিক্যাল কলেজের লোকপুর ক্যাম্পাসের সামনে প্রতিবাদে সামিল হন ঐ প্রতিবাদী স্টাফদের একাংশ । এই প্রসঙ্গে মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ পার্থপ্রতিম প্রধান বলেন , ” যারা ইস্তফা দিতে এসেছিলেন তাঁদেরকে আগেই মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ বরখাস্ত করেছে । তাই তাঁদের আবার নতুন করে ইস্তফা দেওয়ার মধ্যে কোন যৌক্তিকতা নেই । মেডিক্যাল কলেজে প্রায় ২৫০ জন পিজিটি ও প্রায় ১৫০ জন ইন্টার্ন ও সিনিয়র চিকিৎসক রয়েছেন । ফলে এই বরখাস্ত চিকিৎসা ব্যবস্থায় কোন প্রভাব পড়বে না ” ।

Follow Me:

Related Posts