দেশ মহানগর রাজ্য

অমিত শাহের চিঠিকে চ্যালেঞ্জ করে টুইট অভিষেকেরঃ আপনি যে মিথ্যা অভিযোগ করছেন সেটা প্রমান করুন অথবা ক্ষমা চান।

মেহেবুব গাজী,ডায়মন্ড হারবারঃ পরিযায়ী শ্রমিকদের ফেরাতে পর্যাপ্ত ট্রেনের ব্যবস্থা না করে “অবিচার” করছেন মমতা। চিঠি লিখলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ । ওই চিঠিতে অমিত শাহ বলেছেন, কেন্দ্র আটকে পড়া পরিযায়ী শ্রমিকদের নিজেদের রাজ্যে ফেরানোর বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের থেকে প্রত্যাশিত পর্যায়ে সমর্থন পাচ্ছে না। রাজ্য সরকারের কারণেই ভারতীয় রেল পরিচালিত বিশেষ “শ্রমিক ট্রেন” সে রাজ্যে পৌঁছতে পারছে না, এমন অভিযোগও তোলেন তিনি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের মতে এরকম করে রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের সঙ্গে “অবিচার” করছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার।

অমিত শাহের এই চিঠির পর মুখ্যমন্ত্রী নিজে এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও টুইট করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে কার্যত কড়া ভাষায় তোপ দাগলেন সর্বভারতীয় তৃণমুল কংগ্রেসের যুব সভাপতি ও ডায়মন্ড হারবারের সাংসদ অভিষেক ব্যানার্জী টুইট করে জানান, ” সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে নিজের দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ একজন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কয়েকসপ্তাহ নীরব থাকারপর ভারিভুরি মিথ্যে কথা বলে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন! রহস্যজনক ভাবে তিনি এমন মানুষজনের কথা বলছেন যারা প্রকৃত অর্থেই নিজেদের সরকারের উপর বিশ্বাস হারিয়েছে। মাননীয় অমিত শাহ মিথ্যে অভিযোগ প্রমাণ করুন আন্যথা ক্ষমা চান।” তাঁর এই টুইট ঘিরে ইতিমধ্যেই জোর আলোচনা হতে শুরু করেছে রাজ্য তথা জাতীয় রাজনীতিতে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ যে নবান্ন সূত্রে জানা যায় যে,,মোট আটটি ট্রেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকে থাকা মূলত উত্তরবঙ্গ এবং জঙ্গলমহলের শ্রমিকদের ফেরানোর উদ্যোগ নিয়েছে রাজ্য। ৯, ১০ এবং ১১ মে – তিনদিন ধরে যাতায়াত করবে ট্রেনগুলি। প্রথম দিন বেঙ্গালুরু এবং হায়দরাবাদ থেকে দফায় দফায় ৪টি ট্রেন ছাড়া হবে। প্রথম ট্রেনটি বেঙ্গালুরু থেকে এসে পৌঁছবে বাঁকুড়ায়। সেখানে ঝাড়গ্রাম এবং বাঁকুড়ার ১৮০০র বেশি শ্রমিক ফিরবেন। দ্বিতীয় ট্রেন বেঙ্গালুরু থেকে নিউ জলপাইগুড়ি আসবে। এই ট্রেনে ফিরবেন চার জেলা – আলিপুরদুয়ার, জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, কোচবিহার ও কালিম্পংয়ের প্রায় ৩৮০০ জন শ্রমিক। বেঙ্গালুরু থেক থেকে পুরুলিয়াগামী তৃতীয় ট্রেনটি ফিরবে পুরুলিয়া, বীরভূম, পশ্চিম বর্ধমানের হাজার দুয়েক শ্রমিককে নিয়ে।

তবে ইতিমধ্যে পরিযায়ি শ্রমিদের নিয়ে দেশ জুড়ে রাজনীতি শুরু হয়েছে। রাজনীতি ইতিমধ্যেই প্রকাশ্যে। কেন্দ্রের মনোভাব নিয়ে প্রশ্ন তুলছে বিরোধী নেতৃত্বও। তবে এসবকে বিশেষ গুরুত্ব না দিয়ে আসল কাজটা করতেই বেশি মনোযোগী নবান্ন, আটটি ট্রেনের নিখুঁত পরিকল্পনা বোধহয় তারই প্রমাণ।

Follow Me:

Related Posts