আবহাওয়া মহানগর রাজ্য

আসছে আমফান, মোকাবিলায় কতটা প্রস্তুত নবান্ন !

সমর্পিতা ব্যানার্জী,কলকাতাঃ করোনা তে এখনো অবধি রেহাই নেই তার মধ্যে উড়ে এসে জুরে বসলো আমফান। আবহাওয়া দপ্ততের খবর অনুসারে আগামী ৩ থেকে ৪ দিনের মধ্যে যে কোনো সময়ে ৮০ থেকে ৯০ কিলোমিটার বেগে এই ঝড় হতে চলেছে..আর এই ঝোড়ো হওয়ার সাথে বিভিন্ন জেলাতে হতে পারে বৃষ্টিও। আর এই আমফান এর পরবর্তী সময়ে পরিস্থিতি রুখতে কাজ শুরু করে দিয়েছে নবান্ন।

এখন এই করোনা ভাইরাসের জন্য খাবারের থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে মাস্ক, স্যানিটাইজার,সাবান। তাই প্রশাসনের তরফ থেকেও উপকূলবর্তী জেলা গুলোতে সাইক্লোন সেন্টার এ মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও সাবান মজুত করতে শুরু করেছে । ঘূর্ণিঝড় এর জন্য সেই কয়েক লক্ষ উপকূলবাসীকে সরাতে হতে পারে সেই সেন্টার গুলোতে । তার জন্যই আগের থেকে তৈরী সরকার।

হাওয়া অফিসের খবর বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত গভীর নিম্নচাপটি আজ (রবিবার) ঘূর্ণিঝড় এ পরিণত হবে এবং রাত যত এগোবে প্রবল ঘূর্ণিঝড়ের চেহারা নেবে সেটি।আগামী দু দিন ধরে ওড়িশা উপকূল ধরে ঝড়টি এগোবে পশ্চিমবঙ্গের দিকে। হয়তো বুধবার দুপুরে পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে আঘাত হানবে এই আমফান। দক্ষিণ ২৪ পরগনার জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকায় ফ্লাড সেন্টারে মানুষদের নিয়ে আসা হবে। সেখানে ইতিমিধ্যে স্যানেটাইজ করার ব্যব্যস্থা হয়েছে। নিচু এলাকা থেকে মানুষদের অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে আসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জেলা প্রশাসন আরো জানায় যে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা থাকায় ফ্লাড সেন্টারগুলো তে মেনে চলতে হবে সোশ্যাল ডিসট্যান্সিংয়ের বিধি। সেজন্য আমরা সাইক্লোন সেন্টারের সংখ্যা বাড়াচ্ছি। ভিড় এড়াতে বিভিন্ন স্কুলে রাখা হবে দুর্গতদের।

সূত্রে খবর জানা যায়, যে পুর্ব মেদিনীপুর এর বেশ কিছু এলাকাকে চিহ্নিত করা হয়েছে সেই এলাকাগুলোতেও ফ্লাড সেন্টারের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। কন্টাই,তমলুক সহ বেশ কিছু এলাকাগুলো কে চিহ্নিত করা হয়েছে ফলে সেই এলাকার মানূষদের কে অন্যত্র সরানোর ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

নবান্ন সূত্রে আরো জানা যায় সুন্দরবনের দিকে বেশী ক্ষতি পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে সেই জন্যে ওই এলাকাগুলো র দিকে বেশী নজর দেওয়া হচ্ছে

হাওয়া অফিসের আধিকারিক জানান, আগামী ’২০ মে বেশ কিছু জায়গায় আমরা ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের আশঙ্কা করছি। সঙ্গে ঘণ্টায় ৯৫ কিলোমিটার বেগে বইতে পারে ঝোড়ো হাওয়া।’
তবে এখন থেকেই সরকার যে ভাবে আমফান কে নিয়ে উঠে পরে লেগেছে সেটা থেকে বোঝাই যাচ্ছে যে এই আমফান মোকাবিলায় প্রশাসন মানুষের পাশে আছে।

Follow Me:

Related Posts